প্রতিশ্রুত সময়ের আগে প্রকল্প হস্তান্তরঃ গ্রাহকসেবায় আরও একধাপ এগিয়ে সিপিডিএল

admin

গ্রাহকসেবা’র একাগ্র মানসিকতা, ঐকান্তিক প্রচেষ্টা এবং মহান আল্লাহর উপর নিবিড় নির্ভরশীলতা থাকলে যেকোন সময়, যেকোন কঠিন পরিস্থিতিতেও প্রদত্ত প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন সম্ভব। সিপিডিএল এই ঐতিহ্যের ধারক সেই জন্মলগ্ন হতেই।

এরই ধারাবাহিক দৃষ্টান্ত স্থাপনে গতকাল ১৮ জানুয়ারী হতে রহিম’স প্লাজা ডি সিপিডিএল প্রকল্পের কমার্শিয়াল অংশের হস্তান্তরের মধ্যে দিয়ে শুরু হলো হস্তান্তর প্রক্রিয়া । চট্টগ্রামের খুলশীতে নির্মীত এই প্রকল্পটি সিপিডিএল এর সঠিক সময়ে প্রকল্প হস্তান্তরের আরও একটি অনন্য উদাহরণ হিসেবে দাঁড়িয়ে থাকবে আগত সময়ে।
চট্টগ্রাম নগরীর অভিজাত এলাকা খুলশীতে, ১০.৫ কাঠা ভূমি’র উপর নির্মীত ৭০ হাজার বর্গফুটের দৃষ্টিনন্দন এই স্থাপনাটি এমনভাবে পরিকল্পিত হয়েছে যা চট্টগ্রামের কমার্শিয়াল প্রপার্টি বাজারে সম্পূর্ণ নতুন ও ভিন্নমাত্রার অভিজ্ঞতা নিয়ে আসবে।

 

অনির্বচনীয় প্রয়াশ, আন্তরিক শ্রম ও ঘামে সিপিডিএল গ্রাহকদের স্বপ্ন নির্মাণ করে থাকে। সেই স্বপ্ন যথাযথ মানে প্রতিশ্রুত সময়ে হস্তান্তর করতে পারাটাই সিপিডিএল এর অফুরন্ত আত্মবিশ্বাস এর কারন, যা তাদেরকে সেবা প্রদানে বারংবার দৃষ্টান্ত স্থাপনে অদম্য সাহসী করে তোলে।
সিপিডিএল এর অনবদ্য মান, অদ্বিতীয় ব্যবস্থাপনা, কঠোর নিয়মানুবর্তিতা ও পদ্ধতিগত প্রকৌশলে নির্মীত এই প্রকল্পটি গ্রাহক এবং ভূমি মালিকদের স্বপ্নের ঠিকানা হিসেবে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের মাধ্যমে আত্মপ্রকাশ করলো।

সকলের আন্তরিক সহযোগিতা, সমর্থন ও আস্থার সম্মিলিত শক্তিতেই এই দুঃসময়েও প্রকল্প হস্তান্তরের মতো জটিল প্রক্রিয়া সিপিডিএল পরিবার অনায়াসে সম্পাদন করতে পেরেছে বলে অনুষ্ঠানে উপিস্থিত সুধীজন মত প্রকাশ করেন।
উক্ত অনুষ্ঠানে উপিস্থিত ছিলেন ভূমি মালিক ডাঃ আবদুর রহিম, সিপিডিএলের প্রেসিডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার ইফতেখার হোসেন, ডিরেক্টর জনাব রেজাউল করিম, চীফ অপারেটিং অফিসার মোঃ খায়রুজ্জামান জোয়ারদার, চীফ ইঞ্জিনিয়ার জনাব তৈয়বুল আলম, চীফ বিজনেস অফিসার জনাব জিয়াউল হক খানসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

Leave a Reply